সঠিক ইসলাম প্রচারে যৌথ টিভি চ্যানেল চালুর উদ্যোগ

বিশ্বব্যাপী বিশেষ করে পাশ্চাত্যে ইসলাম ফোবিয়া (ইসলামভীতি বা আতঙ্ক) মোকাবেলায় যৌথভাবে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তুরস্ক, পাকিস্তান ও মালয়েশিয়া। আর এর অংশ হিসেবে তিন দেশ মিলে একটি টিভি চ্যানেল খোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।বুধবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম বার্ষিক অধিবেশনের ফাঁকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মাদ এ সিদ্ধান্ত নেন বলে খবর দিয়েছে পার্সটুডে।পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একাধিক টুইটে এ তথ্য জানিয়ে লিখেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান, প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ ও আমি আজ মিলিত হয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি, আমরা তিন দেশ সম্মিলিতভাবে একটি ইংরেজি টিভি চ্যানেল চালু করব যা ‘ইসলাম-ফোবিয়া’র কারণে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলোর মোকাবেলায় কার্যকর ভূমিকা পালন করবে এবং আমাদের মহান ধর্ম ইসলামকে সঠিকভাবে তুলে ধরবে।

’বিষয়টি আরো খোলাসা করে ইমরান খান বলেন, যেসব বিষয় ভুলভাবে বোঝার কারণে লোকজন মুসলমানদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে সেগুলো শুধরে দিতে হবে। ধর্ম অবমাননার বিষয়টি সঠিকভাবে তুলে ধরতে হবে।মিডিয়া জগতে মুসলমানদের যথাযথ উপস্থিতি থাকতে হবে মন্তব্য করে পাক প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, মুসলিম ইতিহাসের ওপর ভিত্তি করে সিরিজ ও সিনেমা তৈরি করে মানুষকে সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে। এর আগে এরকম অনেক গুপ্তচরকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। প্রেসিডেন্টের এই ধরনের মন্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাটরা।কংগ্রেসম্যান রাজা কৃষ্ণমূর্তি এই ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, আশঙ্কা যে প্রেসিডেন্ট ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রতিশোধমূলক কোনও ব্যবস্থা নেন কি না।গত ২৫ জুলাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। তাতে তিনি সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টার বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করার কথা বলেন। না হলে তিনি ইউক্রেনকে আর্থিক সহায়তা বন্ধের হুমকি দেন। ফোনকলের ধারণ করা অংশ গত ২৫ সেপ্টেম্বর প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউজ।এতে দেখা যায়, ট্রাম্প তার ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি জুলিয়ানি এবং মার্কিন অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বারের সঙ্গে সমন্বয় করে এই তদন্তকাজ করতে ইউক্রেন প্রেসিডেন্টকে অনুরোধ করেছেন।জো বাইডেন ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন। বাইডেনের বিরুদ্ধে বিদেশি সরকারকে তদন্তের জন্য চাপ দেওয়ার অভিযোগ নিয়ে স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি মঙ্গলবার ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রতিনিধি পরিষদের আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরুর ঘোষণা দেন। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ট্রাম্পকে অভিশংসনের মুখে পড়তে হতে পারে। যদিও সিনেটে রিপাবলিকানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ থাকায় ট্রাম্প অভিশংসিত হবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares