জুবায়েরের গল্প শুনে হতবাক রশিদ খান!

জুবায়েরের টার্নের প্রশংসা করেন রশিদ। গুগলিরও। বলের গতি যথার্থ বলে রায়। ম্যাচ খেলতে খেলতে আরো পরিণত হওয়ার টোটকা দিয়ে আলগোছে প্রশ্ন ছোড়েন, বেশি বেশি ম্যাচ খেলছেন তো? জুবায়ের কাঁচুমাচু। নিচু গলার স্বরে শুধু বলতে পারেন, ২০১৯ সালে এটি তাঁর প্রথম ম্যাচ। ঘটনাটি সেপ্টেম্বরের। আফগানদের বিপক্ষে বিসিবি একাদশের হয়ে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের।

বছরের প্রথম আট মাস কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলেননি বাংলাদেশের এই লেগ স্পিনার শুনে রশিদ হতভম্ব। জুবায়েরের বোলিংয়ে মুগ্ধতা তাই গুগলির মতো উল্টো বাঁক নিয়ে বিস্ময়ে রূপান্তরিত।

জুবায়ের তবু হাল ছাড়েন না। আর এখানেই তাঁর সামনে চলে আসেন রশিদ খান, ‘তাঁর সঙ্গে কথা বলায় আমি খুব উপকৃত হয়েছি। বেশ কিছু টিপস দিয়েছেন। কিন্তু বলেছেন, অনেক ম্যাচ খেলতে হবে। বছরে প্রথম ম্যাচ খেলছি জেনে হাঁ হয়ে তাকিয়ে ছিলেন কিছুক্ষণ। নিজের কথাই বলছিলেন যে, ম্যাচ খেলতে খেলতেই উন্নতি হয়েছে। এবার তাই জাতীয় লিগে সুযোগ পেলে আমি তা কাজে লাগাতে চাই ভালোভাবে’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares