চীনা মুসলিম নিয়ে চুপ কেন- জবাবে যা বললেন ইমরান

ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে মুসলমানদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি নিয়ে সবর ভূমিকা পালন করছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু পার্শ্ববর্তী আরেকটি দেশ অর্থাৎ চীনেও সংখ্যালঘু মুসলিমদের চরমভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। কিন্তু এ নিয়ে পাকিস্তান টু- শব্দও করেনি।এ নিয়ে সাম্প্রতিক নিউ ইয়র্ক সফরে প্রশ্ন করা হয় ইমরান খানকে। দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক মার্কিন সহকারী সচিব অ্যালিস ওয়েলস প্রশ্ন তোলেন, কেন ইমরান খান চীন নিয়ে কিছু বলছেন না? অথচ চীনে আটক রয়েছে প্রায় দশ লক্ষ উইঘুর এবং অন্যান্য তুর্কিভাষী মুসলিম।ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি অ্যালিস ওয়েলস বলেন, দুই পারমাণবিক শক্তিধর দেশের (পাকিস্তান-ভারত) মধ্যে তীব্রতা আরও কম হওয়াই কাম্য।

গত আগস্টে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে জম্মু ও কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়ে রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। এর পর থেকেই পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কে নতুন করে তিক্ততা তৈরি হয়েছে।অ্যালিস বলেন, ‘‘কাশ্মির বিষয়ে ইমরান খান এত উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু চীন নিয়ে তিনি নীরব। আমি ওই একই রকমের সচেতনতা দেখতে চাই পশ্চিম চীনে আটক মুসলিমদের ব্যাপারেও। তাদের ওখানে প্রায় বন্দি করে রাখা হয়েছে।”মার্কিন এ কর্মকর্তা বলেন, চীনে আটক তুর্কিভাষী মুসলিমদের মানবাধিকার অত্যন্ত বেশি পরিমাণে লঙ্ঘিত হচ্ছে। জাতিসংঘে বিষয়টি আলোকপাতেরও চেষ্টা করেছে তার দেশ।ভারতীয় গণমাধ্যমটি বলছে, তবে ইমরান খান উইঘুরদের প্রসঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি সোমবারের ওই আলোচনায়।পাক প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, পাকিস্তানের সঙ্গে চীনের একটা ‘বিশেষ সম্পর্ক’ রয়েছে। এ বিষয়ে তারা ব্যক্তিগতভাবেই কেবল কথা বলতে চান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares