এজলাসে বঙ্গবন্ধুর ছবি টানালেন গণপূর্তমন্ত্রী

দুই মাসের মধ্যে দেশের সব আদালত কক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। গত ২৯ আগস্ট এ আদেশ আসার পর ২৩ সেপ্টেম্বর এ সংক্রান্ত নোটিশ জারি করে আইন মন্ত্রণালয়।সে অনুযায়ী বুধবার বিকেলে বরিশাল জেলা ও দায়রা জজ আদালতের এজলাসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি টানিয়ে এ কার্যক্রম শুরু করেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। এ সময় তিনি বলেন, এখন বিচার বিভাগ পূর্ণ স্বাধীন, আইন মন্ত্রণালয় কেবল প্রাতিষ্ঠানিক দায়িত্ব পালন করছে।অধস্তন আদালতের সব এজলাস/কোর্টরুমে বঙ্গবন্ধুর ছবি টানানোর বিষয়ে হাইকোর্ট বিভাগের স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান জানান, আদেশ অনুযায়ী পরিকল্পনা সম্পন্ন হয়েছে, বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে।সম্প্রতি এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে আইন মন্ত্রণালয়, হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার, অর্থ মন্ত্রণালয়, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়কে বাস্তবায়ন করতে বলেন আদালত।

দুই মাসের মধ্যে এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের অগ্রগতি জানাতে বলা হয়।উল্লেখ্য, গত ২১ আগস্ট হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট আবেদনটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস। এ রিটের শুনানি শেষে নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি এবং আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত। আইন সচিব, গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব, অর্থ সচিব, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার, ও হাইকোর্টের রেজিস্ট্রারকে এর জবাব দিতে বলা হয়। এর আগে এরকম অনেক গুপ্তচরকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। প্রেসিডেন্টের এই ধরনের মন্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাটরা।কংগ্রেসম্যান রাজা কৃষ্ণমূর্তি এই ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, আশঙ্কা যে প্রেসিডেন্ট ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রতিশোধমূলক কোনও ব্যবস্থা নেন কি না।গত ২৫ জুলাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। তাতে তিনি সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টার বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করার কথা বলেন। না হলে তিনি ইউক্রেনকে আর্থিক সহায়তা বন্ধের হুমকি দেন। ফোনকলের ধারণ করা অংশ গত ২৫ সেপ্টেম্বর প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউজ।এতে দেখা যায়, ট্রাম্প তার ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি জুলিয়ানি এবং মার্কিন অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বারের সঙ্গে সমন্বয় করে এই তদন্তকাজ করতে ইউক্রেন প্রেসিডেন্টকে অনুরোধ করেছেন।জো বাইডেন ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন। বাইডেনের বিরুদ্ধে বিদেশি সরকারকে তদন্তের জন্য চাপ দেওয়ার অভিযোগ নিয়ে স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি মঙ্গলবার ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রতিনিধি পরিষদের আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরুর ঘোষণা দেন। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ট্রাম্পকে অভিশংসনের মুখে পড়তে হতে পারে। যদিও সিনেটে রিপাবলিকানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ থাকায় ট্রাম্প অভিশংসিত হবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares